• সারাদেশ

    মুক্তিযোদ্ধার কন্যা অরুণা হত্যায় জড়িত দলিল লেখকসহ ২ জন গ্রেফতার

      প্রতিনিধি ১৮ মে ২০২২ , ৩:০০:৩৫ প্রিন্ট সংস্করণ

    নিজস্ব প্রতিনিধি::
    বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যা অরুণা খাতুন হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত দলিল লেখকসহ দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। মঙ্গলবার ভোরে তাদের কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার ডাকবাংলো সড়কের মনসুর পীরের বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

    1

    গ্রেফতাররা হলেন- সুনামগঞ্জের দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে (দলিল লেখক) মো. আলাউদ্দিন, একই গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে জহির মিয়া।

    মঙ্গলবার বিকালে র‌্যাব-৯ সিলেটের মিডিয়া সেল এ তথ্য নিশ্চিত করে জানায়, গ্রেফতার ২ জন অরুণা খাতুন হত্যাকান্ডের এজাহারনামীয় পলাতক আসামি ছিলেন।

    উল্লেখ্য, ২ মে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের রসুলপুর নিজ বাড়ি থেকে দুপুরে বের হয়ে ঈদুল ফিতরে পরিবারের জন্য কেনাকাটা করতে বাজারে যাচ্ছিলেন আব্দুল মজিদের ছেলে ফরিদ মিয়া (৩০)। পথে প্রতিপক্ষের ধারাল ছুরির আঘাতে তিনি মারা যান। ওই সময় সহোদর বড়ভাইকে রক্ষায় এগিয়ে আসলে ছোটভাই জাকির হোসেনকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষের লোকজন।

    ঘটনার রাতেই নিহতের ছোটভাই কামাল হোসেন বাদী হয়ে থানায় এ ঘটনায় ৩৯ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায়
    পরদিন মঙ্গলবার ৫ আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

    অপরদিকে ২ মে সন্ধ্যায় কৃষক ফরিদ নিহত হওয়ার খবরে ক্ষুধ হয়ে নিহতের পরিবার ও স্বজনরা সংগঠিত হয়ে পাল্টা প্রতিপক্ষের বসতবাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট চালায়। পুরুষশূন্য ফাঁকা বাড়িতে ভাংচুর চালিয়ে আসবাবপত্র ও গরু লুটে নিয়ে যায় হামলাকারীরা। বাধা দিতে এগিয়ে এলে গ্রামের উমেদ আলীর স্ত্রী ও বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যা অরুণা বেগমকে ধারালো ছুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে মৃত ভেবে ফেলে যায় হামলাকারীরা।

    পর দিন ৩ মে ঈদুল ফিতরের ভোরে সিলেট এএমজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অরুণা মৃত্যুবরণ করেন। ৫ মে নিহত অরুণা খাতুনের ছেলে আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে লুটপাট, ভাংচুর, হত্যার অভিযোগে ৪৬ জনকে আসামি করে পৃথক একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

    ছয় সন্তানের জননী নিহত অরুণা খাতুন উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের লাকমা পশ্চিমপাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের মিয়ার মেয়ে।

    মঙ্গলবার বিকালে র‌্যাব-৯ সিপিসি ৩ সুনামগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক লে. কমান্ডার সিঞ্চন আহমেদ জানান, র‌্যাব-৯ সিলেট, সিপিসি-৩ সুনামগঞ্জ এবং র‌্যাব-১৪ সিপিসি-২ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের যৌথ টিম কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার ডাকবাংলো সড়কের মনসুর পীরের বাসায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় দলিল লেখক আলাউদ্দিন ও জহিরকে মঙ্গলবার ভোরে গ্রেফতার করে।

    আরও খবর 5

    Sponsered content