• Uncategorized

    মধ্যনগরে নৃ-তাত্বিক পরিবারে স্বামীর হাতে স্ত্রী হত্যা

      প্রতিনিধি ২ আগস্ট ২০২২ , ৪:৫৩:৫৮ প্রিন্ট সংস্করণ

    নিজস্ব প্রতিবেদক:
    সীমান্ত জনপদে থাকা ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক পরিবারে রোজালী দাজেল (৪৫) নামে এক গৃহবধু স্বামীর হাতেই হত্যাকান্ডের শিকার হলেন।

    1

    সোমবার ঘাতক স্বামী আবেল সাংমা (৪৭) কে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা জেল হাজত থেকে জেলা কারাগাারে পাঠানো হয়েছে।

    আবেদল সাংমা সুনামগঞ্জের মধ্যনগর উপজেলার বংশীকুন্ডা উওর ইউনিয়নের সীমান্ত জনপদ বাঙ্গাল ভিটার বিন মারাকের ছেলে।

    এ ঘটনায় রবিবার নিহত গৃহবধুর সহোদর আদম দাজেল বাদী হয়ে ঘাতক ভগ্নিপতি আবেল সাংমার বিরুদ্ধে মধ্যনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

    সোমবার সন্ধায় মধ্যনগর থানার ওসি মো. জাহেদুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

    মামলা ও নিহতের পারিবারীক সুত্র জানায়,উপজেলার মধ্যনগরের সীমান্ত জনপদের স্থানীয় বাজার থেকে বাঙ্গাল ভিটা গ্রামের বাসিন্দা আবেল সাংমা ও তার ছেলে জিবিআর দাজেল দুই কেজি ওজনের অধিক একটি পোল্ট্রি মোরগ ক্রয় করে শনিবার সন্ধায় বাড়ি ফিরেন।

    বাড়িতে থাকা স্ত্রী রোজালী দাজেল ফের ওজন করে মোরগের নির্ধারিত দামের বিপরীতে কম ওজন হওয়ায় স্বামী ও সন্তানের সাথে এ নিয়ে কথাকাটাকাটি করে দোকানীকে মোরগ ফেরত দিয়ে আসতে চাপ দেন।

    এক পর্যায়ে মোরগ জবাই করে রান্নার পর রাতের খাবার খেতে বসে স্বামীর সাথে মোরগের ওজন কম হওয়াকে কেন্দ্র করে ফের কথা কাটাকাটি করেন। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতের পাশে থাকা লোহার চোঙ্গা (লোহার পাইপ) দিয়ে স্বামী আবেল সাংমার পায়ে আঘাত করেন রোজালী দাজেল।

    এদিকে সন্তানের সামনে আঘাত করার অপমান সইতে না পেরে লোহার চোঙ্গা স্ত্রীর হাত থেকে কেঁড়ে নিয়ে স্ত্রী রোজালী দাজেলকে ওই লোহার চোঙ্গা দিয়েই শরীরের বিভন্ন স্থানে আঘাত করতে থাকেন আবেল সাংমা।

    প্রাথমিক চিকিৎসার পর শনিবার রাতেই রোজালী দাজেল নিজ বসতবাড়িতেই মৃত্যুর বরণ করেন।

    খবর পেয়ে মধ্যনগর থানা পুলিশ রবিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরীর পর লাশ সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় ।

    একই দিন দুপুরে আত্বগোপনে থাকা ঘাতক স্বামী আবেল সাংমাকে তার নিজ গ্রাম থেকেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

    এরপর মামলা দায়ের পুর্বক ধর্মপাশা চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে তাকে সোপর্দ করা হলে আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করে জেলা কারাগারে প্রেরণের আদেশ প্রদান করেন।

    আরও খবর 1

    Sponsered content