‘আবুধাবি সাসটেইনেবিলিটি উইক’ ও ‘জায়েদ সাসটেইনেবিলিটি প্রাইজ’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল সোমবার সকাল ১১টায় আবুধাবি ন্যাশনাল এক্সিবিশন সেন্টারের (এডিএনইসি) আইসিসি হলে আবুধাবি সাসটেইনেবিলিটি উইক (এডিএসডাব্লিউ) ২০২০ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হলে শেখ হাসিনাকে যুবরাজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ বিন সুলতান আল-নাহিয়ান স্বাগত জানান।

আট দিনব্যাপী বিশ্বের অন্যতম বিশাল সাসটেইনেবিলিটি সমাবেশ এডিএসডাব্লিউ ২০২০ অনুষ্ঠানটি বিভিন্ন দেশের নীতিনির্ধারক, শিল্প বিশেষজ্ঞ, অগ্রণী প্রযুক্তিবিদ ও পরবর্তী প্রজন্মের সাসটেইনেবিলিটি নেতাদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। ১১ জানুয়ারি শুরু হওয়া এই সাসটেইনেবিলিটি সম্মেলন চলবে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।

এ বছর পাঁচটি ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন দেশের ১০টি সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানকে জায়েদ সাসটেইনেবল প্রাইজ প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ বিন সুলতান আল-নাহিয়ান ও শেখ হাসিনা ছাড়াও আরো সাতটি দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার প্রদান করেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিরিবাতির ইউতান তারাওয়া ইয়েতা জুনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলের প্রতিনিধির হাতে পুরস্কার তুলে দেন। স্কুলটি গ্লোবাল হাই স্কুল ক্যাটাগরিতে মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কার পেয়েছে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্য রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো ইউদোদো, রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কাগামে, ফিজির প্রধানমন্ত্রী জোসাইয়া রোরেকে বেইনিমারামা, সার্বিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যানা ব্রনাবিক, আর্মেনিয়ার প্রেসিডেন্ট আরমেন সারকিসিয়ান ও সিয়েরা লিওনের প্রেসিডেন্ট জুলিয়াস মাদা বিও অংশ নেন।

এ বছর একই ক্যাটাগরিতে পুরস্কারপ্রাপ্ত আরো পাঁচটি স্কুল হচ্ছে কলম্বিয়ার এয়ার বাতাল্লা, নাইজেরিয়ার হাকিমি আলিয়ু ডে সেকেন্ডারি, মরক্কোর আল আমল জুনিয়র হাই স্কুল, ইউনাইটেড ওয়ার্ল্ড কলেজ, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার মোস্টার ও নেপালের ব্লুম নেপাল স্কুল। অন্য চারটি ক্যাটাগরির আওতায় সুইডেনের জিএলওবিএইচই স্বাস্থ্য ক্যাটাগরিতে, খাদ্যে ঘানার ওকুয়াফো ফাউন্ডেশন, জ্বালানিতে ফ্রান্সের ইলেকট্রিশিয়ানস উইদাউট বর্ডারস এবং পানি ক্যাটাগরিতে যুক্তরাষ্ট্রের সেরেস ইম্যাজিং পুরস্কার লাভ করে।

প্রধানমন্ত্রী গতকাল সাংরি-লা হোটেলে ডিপি ওয়ার্ল্ডসহ ইউএইর শীর্ষস্থানীয় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এ সময় তিনি বাংলাদেশে বন্দর, জাহাজ নির্মাণ ও আইসিটি খাতে ডিপি ওয়ার্ল্ডকে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা (ডিপি ওয়ার্ল্ড) বাংলাদেশের বন্দর, জাহাজ নির্মাণ, আইসিটিসহ বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বড় বিনিয়োগ করবেন—এ প্রত্যাশা করছি।’ প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারি ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে চেয়ারম্যান সুলতান আহমেদ বিন সুলায়েমের নেতৃত্বে ডিপি ওয়ার্ল্ডের একটি প্রতিনিধিদল, এমিরেটস ন্যাশনাল অয়েল কম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফ হুমাইদ আল ফালাসি, দুবাইয়ের শাসক পরিবারের সদস্য শেখ আহমেদ দালমুক আল মাকতুম এম এ কে পৃথকভাবে বৈঠক করেছেন।

গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সাংরি-লা হোটেলে পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলোতে নিয়োজিত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতদের সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ দেওয়ার কথা।

আজ মঙ্গলবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম, আবুধাবির যুবরাজ আল-নাহিয়ান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম প্রেসিডেন্টের স্ত্রী শেখ ফাতিমা বিনতে মুবারক আল কেতবির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন শেখ হাসিনা। বিকেল সাড়ে ৫টায় তিনি আবুধাবি ন্যাশনাল এক্সিবিশন সেন্টারে ‘দ্য ক্রিটিক্যাল রোল অব উইমেন ইন ডেলিভারিং ক্লাইমেট অ্যাকশন’ বিষয়ে সাক্ষাৎকার অধিবেশনে যোগ দেবেন।

তিন দিনের সরকারি সফরে রবিবার রাতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছেন শেখ হাসিনা। আবুধাবি বিমানবন্দরে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here